বাবা-মাকে বৃদ্ধাআশ্রমে প্রেরণকারীরাও 'ভাইরাস'

  • সোহেল সানি
  • রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১১:৫৪:০০

খ্রীষ্টগত জীবন জগত-পৃথিবীতে দুর্লভ! এরকম একটি দুর্লভ চরিত্রের কথা মনে পড়ল, "বৃদ্ধা আশ্রম"-এ নিক্ষিপ্ত এক পিতামাতার পরিণতির কথা শুনে। অপসংস্কৃতির বিপরীতে মা-ভক্ত এক দ্বারকানাথের জীবনবোধের আশ্রয় নেয়া যেতে পারে।

যেসব সন্তানেরা পিতামাতাকে বৃদ্ধা আশ্রমে পাঠাতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে, তারা সমাজের বিষাক্ত ভাইরাস। মরণঘাতী করোনা নামক ভাইরাসের প্রতিশোধকমূলক ওষুধ হয়তো আবিষ্কার হয়ে যাবে, কিন্তু এ মনুষ্যত্ববোধে যে ভাইরাসের সংক্রমণ তা দূর করা যাবে না, মানুষের মতো মানুষ না হলে। আঠারো শতকের দ্বারকানাথ প্রসঙ্গে যাবার আগে বলে নিচ্ছি, প্রতি সপ্তাহের "রোববার" একটি বিশেষ দিন। পৃথিবীর সবদেশের ন্যায় আমাদের প্রিয় বাংলাদেশেও জিয়া শাসনকাল পর্যন্ত রোববার ছিল সরকারি ছুটির দিন। খ্রীষ্টীয় ধর্মানুরাগীদের জন্য রোববার হলো, ঈশ্বরের প্রতি একটি পরীক্ষা, ত্যাগ ও প্রার্থনার দিন। 

খ্রীষ্টধর্ম শাস্ত্র অনুযায়ী খ্রীষ্টের ত্যাগস্বীকার, ক্ষমাশীলতা আর স্বর্গীয় অতুলন ধৈর্য, জীবনকার্যে প্রতিফলিত করলেই কেবলমাত্র তদীয় শিষ্যত্ববরণ করা সম্ভব! রোববার খ্রীষ্টশিষ্যের সাধনার দিন। ওদিন তাঁর ভক্তরা বিশেষ আহারাদি থেকে বিরত থাকতেন। নির্জনে বসে শাস্ত্রপাঠে ও প্রার্থনাতে তাঁদের সময়টা যাপিত হতো। 

খ্রীষ্টশিষ্যত্বে অবতীর্ণ হন কট্টর হিন্দুপূজারী মা'য়ের খ্রীষ্টধর্মে দীক্ষিত হওয়া এক সন্তান। এভাবেই প্রতি রোববার প্রার্থনাতে মগ্ন হয়ে থাকতেন। তখন মা যেন অধিক বিষাদে, মনঃক্ষোভে, তিরস্কারে, পীড়নে, সন্তানের সংশোধন করবেন ভেবে নানাপ্রকার কষ্ট দিতেন। সন্তানের সাধনায় ব্যাঘাত ঘটাতেন। কিন্তু অবিচলিতভাবে সবই বহন করে ক্লেশকর বিষাদের মৃদু হাসিতে দ্বারকানাথ কেবল বলতেন- "মা আমার শাস্ত্রে কী আছে জানলে তুমি কখনও এমন করতে না।" 

পুত্রের প্রতি এরকম কঠোর ব্যবহার যে দেখতো সেই বিস্মিত হতো। সবাই বলাবলি করতো-এতো ধৈর্য কোথা হতে পেলো, মায়ের এতো অবিচার পুত্র কেমন করে সয়? 

নিপীড়নের শিকারী দ্বারকানাথ ১৮২৮ খ্রীস্টাব্দে লাহিড়ী বংশে জন্ম নেন। লাহিড়ী বংশের হিন্দু কলেজ প্রতিষ্ঠাসহ ইংরেজি শিক্ষার প্রচলনে বিরাট ভুমিকা ছিল। এক মাভক্ত বিস্ময়কর প্রতিভা! সেই কালে ইংরেজি বিদ্যায় পারদর্শী 

দ্বারকানাথের কন্যার ভাষায় "যে পরিবারের এরূপ পিতার স্মৃতি থাকে সে পরিবার ধন্য! যে বংশের সন্তান মায়ের পদদ্বয় তাম্রকুণ্ডে স্থাপনপূর্বক পূজা করতে পারে, সে বংশের পক্ষে এই মাতৃভক্তি সম্ভ্রমের বিষয়।

১৮৫৭ খ্রীস্টাব্দে সিপাহি বিদ্রোহে, সিপাহিরা যখন আগরানগর আক্রমণ করে এবং প্রত্যেক ইংরেজ ও খ্রীস্টানকে হত্যা করতে প্রবৃত্ত হয়, তখন হিন্দুরাই দ্বারকানাথকে বাঁচাতে লুকিয়ে রাখে। প্রায় আটমাস আগরার কেল্লাতে দ্বারকানাথের সঙ্গে বন্দী থাকা ইংরাজ রেভারেন্ড ইভান্স দ্বারকানাথ সম্পর্কে বলেন, " Meek as a lamb, humble as a baby, true as steel" (তিনি নিরীহতাতে মেষশাবক, বিনয়ে শিশু ও সত্যনিষ্ঠাতে ইস্পাত-দৃঢ়) 

কৃষ্ণনগরে অনুমান ১৮২৮ খ্রীস্টাব্দে লাহিড়ীবংশে জন্মেছিলেন দ্বারকানাথ। শৈশবে পিতৃহীন হয়ে মায়ের সান্নিধ্যে মাতুলালয়ে তাঁর বাস। পনেরো বছর বয়ঃক্রমকালে এরকম কোনো একটি ঘটনার সাক্ষাৎ ঘটে, যাতে দ্বারকানাথের মা দারুণ মনঃপীড়াপ্রাপ্ত হন। পঞ্চদশবর্ষীয় কিশোর প্রতিজ্ঞাপূর্বক মাতুলালয় ত্যাগ করেন, নিজে উপার্জনক্ষম হয়ে জননীর দুঃখ সংবরণ করতে না পারলে আর আত্মীয়স্বজনকে মুখ দেখাবেন না। কয়েক আনা পয়সা মাত্র পথের সম্বল নিয়ে পদব্রজে হেঁটে হেঁটে আগরাতে গিয়ে পৌঁছেন। 

সেখানে শান্তিপুর নিবাসী একজন বাঙালি ভদ্রলোক তাঁর প্রতি কৃপা-পরবশ হয়ে স্বীয় ভবনে আশ্রয় দেন এবং বিদ্যাশিক্ষার  বন্দোবস্ত করে দেন। কয়েক বছরের ব্যবধানে দ্বারকানাথ ইংরেজি বিদ্যায় পারদর্শী হয়ে স্বর্ণপদক লাভ করেন। কলেজ থেকে উত্তীর্ণ হয়ে আগরাতেই একটি উচ্চ বেতনের কর্ম পেয়ে গেলেন। প্রথম বেতন পেয়েই মাকে পত্র লিখলেন। ভগ্নহৃদয়া মা বহুবছর ধরে নিরুদ্দেশ সন্তানের পত্র এবং অর্থ পেয়ে ক্রন্দন করলেন। মাকে আগরাতে নিয়ে আসা হলো। মাতৃসেবা ও গৃহধর্ম প্রবৃত্ত হলেন দ্বারকানাথ। তিনি ধর্মতত্ত্ব নির্ণয়ের জন্য নানা শাস্ত্র অধ্যয়ন করেন। একজন উপরিতন কর্মচারীর সংস্রবে এসে তাঁর খ্রিস্টীয় ধর্মের প্রতি আস্থা জন্মাল। তিনি খ্রীষ্ট ধর্মে দীক্ষিত হলেন। তারপর আরাধ্যা মায়ের প্রতিকূলতায় তাঁর জীবন ঘোর নির্যাতনময় হয়। দ্বারকানাথের কনিষ্ঠ কন্যা স্বীয় পিতার অপরাজিত ধৈর্যের বিবরণ দিয়েছেন একটি গ্রন্থে। 

"মায়ের বিশ্বাস ছিলো বাইবেল ধর্মশাস্ত্র পুড়িয়ে ফেললে, উপাসনাকালে ব্যাঘাত জন্মালে, মত বিপর্যয় ঘটার সম্ভাবনা এবং এই ভ্রমবশত যতদূর সম্ভব পুত্রের ধর্মসাধনায় বাধা জন্মাতে অবহেলা করতেন না। কত যে ধর্মশাস্ত্র দগ্ধ করেছেন তা কি বলব!  বহুবার বাইবেল লুকিয়ে রেখেছেন। এমন দিন যেতো না, যাতে মায়ের দুর্ব্যবহারে ও কঠোর পীড়নে কষ্ট না পেতেন। 

মা যতদিন জীবিত ছিলেন- ক্রমাগত বলতেন, " এমন ছেলে বিধর্মী এ কি প্রাণে সয়? বহুকালব্যাপী এই ঘোর নির্যাতনেও প্রকৃতি কখনও চঞ্চল হয়নি। ধর্মবিশ্বাস বিন্দুমাত্র বিচলিত হয়নি এবং একটি মূহুর্তের জন্যও কখনও মায়ের প্রতি অসম্মান বা অশ্রদ্ধা প্রকাশ করেননি। সেই সদানন্দ শান্তমূর্তি সব প্রতিকূল অবস্থায় সমান ধীর থাকতেন। তিরস্কার উৎপীড়ন অম্লান ভাবে অটল ধৈর্যের সঙ্গে বহন করেছেন। এমন গভীর মাতৃভক্তির দৃষ্টান্ত অতি বিরল! 

উপার্জনের সব টাকাও মায়ের হাতেই দিতেন। মা সে থেকে যা দিতেন তাতেও কখনও দ্বিরুক্তি ছিল না। খ্রীষ্টের ত্যাগস্বীকার, স্বর্গীয় অতুলন ধৈর্য, ক্ষমাশীলতা, জীবনের প্রতিকার্যে, তাঁর প্রভুর আদর্শ যেন প্রতিফলিত করার জন্যই তদীয় শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন! 

লাহিড়ীবংশীয়দের সহৃদয়, সদাশয়, পরোপকারী ও সত্যনিষ্ঠ ছিলেন। এখনও লাহিড়ী পরিবারের সদস্যরা কৃষ্ণনগরে মানসম্ভ্রমে অগ্রগণ্য। পাদটীকা, পিতামাতাকে বৃদ্ধা আশ্রমে প্রেরণ নয়, বরং পিতামাতার পদতলে স্বর্গ হয়ে উঠুক সন্তানের নিবাস।  

লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

মন্তব্য