ঘরে বসে কাজ করেও ওজন কমানোর কিছু দুর্দান্ত উপায়

  • ডেস্ক
  • রবিবার, ০৪ অক্টোবর ২০২০ ১২:০৩:০০

ঘরবন্দি জীবন। হাটাহাটি নেই,দৌড়ঝাঁপ নেই। অনেকেই এখনো বাড়িতে বসে অফিস করছেন। এতে করে আর যাই হোক ওজন কিন্তু বেড়ে যাচ্ছে। বাড়তি ওজন যেমন দেখতে খারাপ লাগে তেমনি অনেক অসুখ ডেকে নিয়ে আসে। লকডাউনের কারণে বেশিরভাগ মানুষের বদলে গেছে জীবনধারা। লন্ডনের এক কলেজের সমীক্ষায় জানা গেছে লকডাউনে ৪৮ শতাংশ মানুষের শরীর ওজন বেড়েছে। তবে পরিস্থিতি এমন থাকলে দীর্ঘদিন ঘরে বসে কাজ করতে হবে। কিছু সহজ উপায় মেনে চললেই ঘরে বসেও ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে।

আমাদের শরীর বিভিন্নভাবে ক্যালোরি বার্ণ করে। কখনো বিশ্রাম করে কখনো বা শারীরিক পরিশ্রম করে। পরিশ্রম করা ও ডায়েট করা ছাড়াও কাজের সময় বিপাকীয় গতিকে  বাড়িয়ে তোলার মাধ্যমে শরীরের ক্যালোরি পোড়ানো যায়। এতে করে ওজন কমে।

টেবিলে সোজাভাবে বসা:
বাড়ি থেকে অফিসের কাজ করার সময় চেয়ার বা টুলে বসলে একদিকে যেমন ব্যাক পেইন কমে অন্যদিকে তা ওজন কমাতেও সাহায্য করে। সোজা হয়ে বসে কাজ করলে মাসলের উপর চাপ পড়ে এতে করে ক্যালোরি বার্ণ হয়। এক্ষেত্রে কাজের ফাঁকে উঠে হাটা যেতে পারে।  সুইজারল্যান্ডের একটি সমীক্ষায় বলা হচ্ছে এভাবে বসে কাজ করলে  শরীর ফ্যাট জারণের মাত্রা বাড়ে।

ডেস্কে বসে হালকা শরীর চর্চা:
আপনি ডেস্কে বসে কাজ করছেন বলে এমন না যে শরীর নড়াচড়া করতে পারবেন না। কাজের ফাকে ক্রাঞ্চ, পুশআপ, স্কোয়াট করা যেতে পারে। এতে করে একঘেঁয়েমিও দূর হবে। শরীরকেও রাখবে ফিট। এছাড়া ব্রিদিং এক্সসারসাইজ,ইয়োগা করা যেতে পারে। এতে করে শরীরে ওজন কমাতে সাহায্য করবে।

পর্যাপ্ত পানি খাওয়া:
পানির কোন বিকল্প নেই। সারাদিনে পানি খেলে একদিকে যেমন শরীর থেকে টক্সিন বের হয়ে যায় অন্যদিকে ক্যালোরি পুড়তে সাহায্য করে।  পানি একমাত্র পানীয় যেখানে কোন ক্যালোরি নেই।  এজন্য কোন হিসেব না করেই পানি খাওয়া যেতে পারে।

প্রাণখুলে হাসা:
শুনতে কিছুটা অবাক মনে হলেও হাসি শরীরের জন্য অনেক উপকারী। হাসলে যেমন মন ভালো থাকে তেমনি ক্যালোরিও বার্ণ করে হাসি।  হাসলে হার্টও ভালো থাকে। তাই বলে এমন নয় যে কারণে, অকারণে হাসতে হবে। কমিকস পড়ে, ফানি ভিডিও দেখে, বন্ধুদের সাথে আড্ডায় হাসা যেতে পারে।

তাপমাত্রা:
অনেক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ঠান্ডা তাপমাত্রা শরীরে ব্রাউন ফ্যাটকে সক্রিয় করে এতে করে বিপাক ক্রিয়া বাড়ে এবং পেট বা এর আশেপাশে ফ্যাট পোড়াতে সাহায্য করে।  

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

মন্তব্য