প্রতিবন্ধী স্কুল শিক্ষার্থীরা পেল নতুন বই, হুইল চেয়ার ও শীতবস্ত্র

  • ওয়াহিদ মুরাদ, মাদারীপুর :
  • মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী ২০২১ ১১:৩২:০০

মাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলার শাখারপাড় এলাকার ভ্যান চালক সেলিম শরীফের বড় মেয়ে মরিয়ম একজন প্রতিবন্ধী। বিষয়টি বুঝে ওঠার পর থেকেই সেলিম শরীফের স্বপ্ন জাগে একটি স্কুল করার। যেখানে প্রতিবন্ধী ছেলে-মেয়েরা পড়াশোনার পাশাপাশি কারিগরি শিক্ষাও পাবে। তার এই স্বপ্ন অর্জনের লক্ষ্যে জনসমর্থন ও সভা সমাবেশ শুরু করেন সেলিম শরিফ। তার অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলস্বরূপ ২০১৭ সালে যাত্রা শুরু করে প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থা এবং ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠা করেন প্রতিবন্ধী স্কুল। ২০২০ সালে স্কুলের নামে জমি ক্রয় করেন। 

বর্তমানে বিদ্যালয়ের একটি টিনসেট ঘরের উদ্বোধন করো হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে বিদ্যালয়ের ২ শ ১২জন শিক্ষার্থীকে প্রথম শ্রেণী থেকে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত বই বিতরণ করা হয়। বই এর সাথে ৭০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে শীতবস্ত্র ও ৩টি হুইল চেয়ার বিতরণ করা হয়। নতুন বই, শীতবস্ত্র ও হুইল চেয়ার বিতরণ শেষে বিদ্যালয়ের ভবন উদ্বোধন করেন রাজৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

সেলিমের উদ্দেশ্য শিক্ষার্থীদেরকে কারিগরি শিক্ষা দেওয়া। কারিগরি শিক্ষার মধ্যে রয়েছে মোমবাতি তৈরি করা, ইলেকট্রিক্যাল বাল্ব তৈরি করা ও নকশী কাঁথা সেলাই প্রশিক্ষণ। এখানে প্রতিবন্ধী শিশুসহ বিভিন্ন বয়সের প্রতিবন্ধী রয়েছে। কেউ বাক প্রতিবন্ধী কেউ শারীরিক আবার কেউ বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। অটিজম মানুষগুলো যেনো সমাজের বোঝা না হয় তাই এই উদ্যোগ। 

এরা যেনো নিজেরাই অর্থ উপার্জন করতে পারে। সব সময় এই মানুষগুলোর পাশে ছিলেন রাজৈর পৌরসভার মেয়র শামীম নেওয়াজের সহধর্মীনি মুক্তা নেওয়াজ। বই বিতরনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজৈর পৌর মেয়রসহ সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ। নতুন বই, শীতবস্ত্র ও হুইল চেয়ার পেয়ে খুশিতে আত্মহারা প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা। এতে আনন্দিত শিক্ষকরাও। সবকিছু সম্ভব হয়েছে প্রতিষ্ঠাতা ভ্যান চালক সেলিম শরীফের জন্য। এখন তার পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন সমাজের অনেকে।

রাজৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আনিসুজ্জামান ভ্যান চালক সেলিম শরীফের প্রশংসা করে বলেন, ‘আমার সার্বিক চেষ্টা থাকবে এই স্কুলটি যেনো সামনের দিকে এগিয়ে যায়। এ জন্য সব ধরণের সাহায্য সহযোগিতা করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

মন্তব্য