মাকে গোয়ালঘরে রাখায় ২ ছেলে গ্রেপ্তার, জামিনে ছাড়িয়ে আনেন মা-ই

  • অনলাইন
  • বুধবার, ১৫ জুন ২০২২ ১২:০৬:০০
  • কপি লিঙ্ক

মানিকগঞ্জের সিংগাইরের সেই বৃদ্ধা মা এখন বড় ছেলের ঘরে থাকেন। ছয় মাস ধরে মাকে গোয়ালঘরে রাখায় এবং ঠিকমতো ভরণপোষণ না দেওয়ায় গ্রেপ্তার করা হয় দুই ছেলে ও এক ছেলের বউকে। পরে মা-ই তাঁদের আদালত থেকে জামিনে ছাড়িয়ে আনেন।

গতকাল মঙ্গলবার খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ছেলেরা ও তাঁদের স্ত্রীরা এখন মা আয়েশা বেগমের যত্ন নিচ্ছেন।তিনি ভালোই আছেন।
সিংগাইর উপজেলার মধ্য চারিগ্রামের মৃত হজরত আলীর স্ত্রী আয়েশা বেগম। তাঁর বয়স ৮৫ বছর। তাঁর তিন ছেলে মো. কলম, মোস্তফা ও চানু মিয়া। চানু মিয়া প্রবাসী। কলম ও মোস্তফা কৃষিকাজ করেন। পৈতৃক বাড়িতে স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে থাকেন। মা আয়েশা বেগমও থাকতেন। কিন্তু ঘরে জায়গার অভাবের কথা বলে ছয় মাস আগে তাঁকে ছেলেরা ও ছেলেদের বউরা রাখেন গোয়ালঘরে। তাঁকে ঠিকমতো খাবারও দিতেন না ছেলেরা। প্রতিবেশীরা এ নিয়ে কথা বললে উল্টো তাঁদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করতেন ছেলেরা ও ছেলেদের স্ত্রীরা।

বিষয়টি এলাকার লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারেন মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান। তাত্ক্ষণিক তাঁর নির্দেশে সিংগাইর পুলিশ গত রবিবার আয়েশা বেগমকে গোয়ালঘর থেকে উদ্ধার করে। আটক করে দুই ভাই কলম ও মোস্তফা এবং চানু মিয়ার স্ত্রী মর্জিনা বেগমকে।

সিংগাইর থানার পরিদর্শক আনিসুর রহমান জানান, পরের দিন সোমবার ভরণপোষণ না করার অভিযোগে আয়েশা বেগম তাঁর দু্ই ছেলে কলম ও মোস্তফা এবং চানুর স্ত্রী মর্জিনার বিরুদ্ধে মামলা করেন। আটককৃতদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে সোমবার দুপুরে মানিকগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে হাজির করা হয়। কিন্তু মা তাঁদের জামিন চেয়ে আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন।

জামিনে বেরিয়ে এসে কলম, মোস্তফা ও মর্জিনা বেগম পুলিশ ও সংবাদকর্মীদের জানান, তাঁরা এখন থেকে মায়ের দেখাশোনা করবেন। মাকে আর অবহেলা করবেন না।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

মন্তব্য